Home ›› আন্তর্জাতিক ›› ‘এখানে কিন্তু সবাই ইঁদুর-বাদুড় খান না’

‘এখানে কিন্তু সবাই ইঁদুর-বাদুড় খান না’

-

করোনাভাইরাস নিয়ে গুজবের শেষ নেই। গত ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে ছড়িয়ে পড়ার পর এই মহামারী ভাইরাসে এখন পর্যন্ত মারা গেছে ১০১৬ জন। এর মধ্যে গতকাল একদিনেই মারা গেছেন ১০৮ জন। নতুন এ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪২ হাজার ৬৩৮ জন। বিভিন্ন দেশ চীন থেকে তাদের নাগরিক সরিয়ে নিয়েছে। চীনে এখনো যারা প্রবাসী জীবন যাপন করছেন তারা দেশে ফেরা নিয়ে নানা চাপে আছেন। তেমনই একজন চন্দ্রচূড় পাল। সাংহাই থেকে লিখেছেন আনন্দবাজার পত্রিকায়। তিনি লিখেছেন:

অসংখ্য প্রশ্ন আর মন্তব্যের সামনে পড়ছি। সোশ্যাল মিডিয়া, হোয়াটসঅ্যাপ বা সোজাসুজি ফোনে। ঘুরে-ফিরে সকলের মুখেই এক কথা- কী প্রয়োজন চীনে পড়ে থাকার। ইঁদুর-বাদুড় ভাজা খায় এ-দেশের মানুষজন। এই করোনা-আতঙ্কে বাঙালির ছেলের সেখানে থাকার দরকার কী!

কর্মসূত্রে চীনের সাংহাই শহরেই আমার দ্বিতীয় ঘর। বললেই তো আর ছেড়ে চলে যাওয়া যায় না। আর সত্যি কথা বলতে কী, এখানকার সবাই ইঁদুর-বাদুড় খান, এ কথাটাও ঠিক নয়। চীনের কিছু কিছু জায়গায় কাঁচা বা কম রান্না করা জিনিস খাওয়ার প্রচলন রয়েছে ঠিকই। কিন্তু ‘লাইভ মার্কেট’ বা ‘জ্যান্ত খাবারের রেস্তোরাঁ’র সংখ্যা আস্তে আস্তে কমে আসছে। আর এখানে আমার মতো প্রবাসীরা তো কাঁচা খাবার বা বাদুড় ভাজা ভুলেও চেখে দেখেন না! তাই সংক্রমণের মোকাবিলার সঙ্গে সঙ্গে গুজবের মোকাবিলাও করতে হচ্ছে আমাদের।

তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ যে এত মারাত্মক চেহারা নেবে, সার্সের থেকে এই সংক্রমণে মৃত্যু অনেক বেশি হয়ে যাবে, তা মনে হয় কেউই বুঝতে পারেনি। সাধারণ মানুষ তো নয়ই, প্রশাসনও নয়। কিন্তু সরকার যে ভাবে সব কিছু সামলানোর চেষ্টা করছে, তা সত্যিই প্রশংসার যোগ্য।

যেমন, আমাদের এই শহর সাংহাই। রাস্তাঘাটে, প্রতিটা পাড়ায়, আবাসনগুলির বাইরে স্থানীয় প্রশাসনের প্রতিনিধিরা দাঁড়িয়ে রয়েছেন মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও নানা ধরনের ডিজইনফেকট্যান্ট নিয়ে। আবাসনে ঢোকা-বেরোনোর সময়ে, মেট্রো স্টেশনে, বিমানবন্দরে- সব জায়গাতেই তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে। কারও অসুস্থতার আভাস পেলেই তাকে স্থানীয় স্বাস্থ্য পরিষেবা কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। হুবেই প্রদেশের মতো বেশ কয়েকটি জায়গা, যেখানে সংক্রমণ সব থেকে বেশি, সেখান থেকে আপাতত সাংহাইয়ে প্রবেশ নিষেধ। অন্য কোনও জায়গা থেকে এ শহরে যারা আসছেন, তাদের ১৪ দিন ‘গৃহবন্দি’ থাকার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। মানে, খুব দরকার না হলে বাড়ির বাইরে বেরোতে নিষেধ করা হচ্ছে বাইরে থেকে আসা মানুষদের। কারণ এই ভাইরাসের ‘ইনকিউবেশন পিরিয়ড’ ১৪ দিন। ফলে দু’সপ্তাহেই বোঝা যাবে কারও দেহে করোনার সংক্রমণ রয়েছে কি না।

শহরের তিনটা মূল রেল স্টেশনে চলছে বিশেষ নজরদারি। যেমন হুংচাও স্টেশনে বসানো হয়েছে ১৬টি ‘থার্মাল চেক পয়েন্ট’। ৫০ জন চিকিৎসক ও নার্স, ১৬০ জন পুলিশ ও ৩০০ জন স্বেচ্ছাসেবকের একটি দল স্টেশনে সজাগ দৃষ্টি রেখেছেন। গত তিন সপ্তাহে কারা কারা হাসপাতাল বা সংক্রমণ-প্রবণ এলাকায় গিয়েছেন, সেই তথ্য বের করে তাদের আলাদা রাখার চেষ্টাও করা হচ্ছে। মার্চ পর্যন্ত বন্ধ সব স্কুল।

চিকিৎসক ও বিজ্ঞানীদের ধারনা, ফেব্রুয়ারির ২০-২৫ তারিখে করোনাভাইরাসের প্রকোপ সর্বোচ্চ পর্যায়ে উঠতে পারে। তার পরে সংক্রমণ কমবে। আমরাও নিশ্চিত যে, করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে স্থানীয় প্রশাসনই জয়ী হবে। তবু সমবেদনা সেই সব মানুষকে, যারা এই যুদ্ধে স্বজন হারালেন।

 

2 weeks ago (February 11, 2020) 5 Views
Report

About Author (90)

Administrator

Hi !! This is Raj. Just a simple web designer and an SEO expert.

Leave a Reply

You must be Logged in to post comment.

Related Posts


Contact Admin At Facebook